কানাডায় বসে দেশবিরোধী ষড়যন্ত্র করছে শহীদ ইসলাম গাং

তারেকের অর্থায়নে কানাডায় বসে দেশবিরোধী ষড়যন্ত্র করছে শহীদ ইসলাম গং

নিউজ ডেস্ক : বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ধারাবাহিক প্রোপাগান্ডার অংশ হিসেবে বিগত ৬ বছর ধরে মিথ্যা ও বিভ্রান্তিকর তথ্য সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে দিচ্ছে দেশি-বিদেশি কয়েকটি চক্র। বর্তমানে বিএনপির দুর্নীতিগ্রস্থ নেতা তারেক রহমানের ইন্ধনে কানাডায় জোটবদ্ধ একটি চক্র রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিলের উদ্দেশ্যে ফেসবুকের মাধ্যমে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ভয়ঙ্কর মিথ্যাচার করছে।

উক্ত কানাডাভিত্তিক চক্রের একটি তালিকা ইতিমধ্যে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হাতে এসে পৌঁছায়। যাদের মধ্যে নাগরিক টিভি, প্রথম বাংলাদেশ, ফেস দ্য পিপল, মেজর দেলোয়ার হোসেন, ক্যাপ্টেন মারুফুর রহমান রাজু নামক পেইজ অন্যতম।

উল্লেখিত পেইজে বিভিন্ন দেশবিরোধী অপপ্রচারকারী লাইভে এসে দেশের বিরুদ্ধে অনবরত অযাচিত মিথ্যাচার করতে থাকে হরহামেশা। যারা মিথ্যাচার ছড়ায় তাদের মধ্যে ক্যাপ্টেন (অব:) শহীদ ইসলাম, ক্যাপ্টেন (অবঃ) মারুফুর রহমান রাজু, মেজর (অবঃ) দেলোয়ার হোসেন, তাজ হাশমী অন্যতম।
উল্লেখিত ব্যক্তিরা নিজস্ব আইডির মাধ্যমেও দেশবিরোধী প্রচারণার কাজে লিপ্ত রয়েছেন।

জানা যায়, দেশবিরোধী অযাচিত মিথ্যাচার প্রচারকারীদের সাথে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমানের ‘হট কানেকশন’ রয়েছে। দেশ থেকে বেরিয়ে কানাডা গিয়ে ডাল ভাত খেয়ে বেঁচে থাকার জন্য গুজবকারীরা তারেক রহমানের সঙ্গে মাসিক চুক্তিভিত্তিক পারিশ্রমিকের বিনিময়ে দেশের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য প্রচার করছেন।

যাদের মধ্যে ক্যাপ্টেন (অব:) শহীদ ইসলাম, মেজর দেলোয়ার হোসেন, ক্যাপ্টেন মারুফুর রহমান রাজুকে প্রতিমাসে মোটা অংকের কানাডিয়ান ডলার প্রেরণ করা হয়। নাগরিক টিভি, প্রথম বাংলাদেশ ও ফেস দ্য পিপলের সম্পাদকদেরকেও মাসিক ভিত্তিতে কানাডিয়ান ডলার সিটি ব্যাংক ইউকে মারফত প্রেরণ করেন তারেক রহমান বলে বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায়।

এ বিষয়ে কানাডায় বসবাসরত বাংলাদেশের এক রাজনীতি সচেতন ব্যক্তির সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অযথা মিথ্যাচার করা ক্যাপ্টেন (অব:) শহীদ ইসলাম সেনাবাহিনীতে থাকা অবস্থায় উচ্ছৃঙ্খল ছিলেন। যার কারণে তিনি একাধিকবার শাস্তিও ভোগ করেছিলেন। যশোর সেনানিবাসে মেস ওয়েটারকে লাথি মারার অপরাধে ১৯৮০ সালের ৭ আগস্ট সেনা আইনে তিনি শাস্তিপ্রাপ্ত হন। সরকারী চাকুরে হয়ে অধীনস্ত কর্মচারীকে লাথি মারা ব্যক্তির কাছ থেকে গণতন্ত্রের বয়ান শোনা নিতান্তই হাস্যকর।

ক্যাপটেন শহীদ ইসলাম প্রথম থেকেই দেশ বিরোধী মনোভাবাপন্ন মানুষ ছিলেন। তিনি ডিফেন্স জার্নাল পত্রিকার সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালনকালে পত্রিকাটিতে সেনাবাহিনী সম্পর্কিত নেতিবাচক ও স্পর্শকাতর তথ্য প্রকাশ করেন। এমনকি তিনি Daily Star এ Senior Editor হিসেবে কর্মরত অবস্হায় প্রথিতযশা দুটি প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে বিপুল অংকের টাকা হাতিয়ে নেন। পরে এ নিয়ে মাহফুজ আনামের সাথে বাদানুবাদের কারণে চাকুরীচ্যুত হন। ১৯৭৯ সালে কমিশন পাওয়া শহীদ ইসলামের অপকর্মে ভরা সামরিক জীবন শেষ হয় বিভিন্ন কলঙ্কে জর্জরিত হওয়ার কারণে ১৯৮৪ সালে ১৬ মে। পরবর্তীতে, First Secretary (Press and Political) হিসেবে যুক্তরাজ্যের বাংলাদেশ হাই কমিশন লন্ডন-এ কর্মরত ছিলেন। সেখানেও তিনি নারী ও আর্থিক কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে পড়েন। ১৯৮৭ সালের ১৭ই আগস্ট লন্ডনের ভাড়া বাসায় লন্ডন প্রবাসী বাঙ্গালি ও দূর সম্পর্কের আত্মীয় মোখলেসুর রহমান ভুঁইয়ার বিয়ে করা স্ত্রীকে নিয়ে উঠলে দূতাবাস কার্যালয় ও লন্ডনে অবস্থিত বাঙালিদের মধ্যে বিষয়টি জানা জানি হয় এবং তিনি বিপাকে পড়েন। এমনকি মোখলেসুর রহমানের মামলায় হেনস্হা হবার ভয়ে শহীদ ইসলাম স্বেচ্ছায় বাড়ি থেকে উধাও হয়ে যান। কয়েকদিন আত্মগোপনে থেকে তিনি স্বেচ্ছায় লন্ডনের পুলিশের নিকট ধরা দেন। এরপর লন্ডন পুলিশ থেকে ছাড়া পেয়ে তিনি কানাডায় চলে এসে একটি রেস্টুরেন্টে কাজ নেন এবং আর্থিক দৈন্যদশায় পড়েন। তার এ আর্থিক দীনতাকে পুঁজি করেই তারেক জিয়া তাকে দিয়ে প্রোপাগান্ডা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে বিশ্বস্ত একটি সূত্র উক্ত প্রতিবেদককে নিশ্চিত করেছে। তাছাড়া, ভবিষ্যতে সরকার পরিবর্তন হলে তাকে সাংসদ বা পার্টির বড় পদে বসানোর প্রলোভন দেখিয়ে প্রলুব্ধ করা হয়।

এই প্রসঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সাবেক অধ্যাপক ড. মাহমুদুল হাসান বলেন, ‘দেশের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়ানো অশুভ লক্ষণ। যারা এগুলো করছে, তারা অতীতেও দেশের ভালো চায়নি, এখনও চায় না। নইলে করোনার এই সময়ে এমন মিথ্যাচার কোনো সুস্থ মস্তিষ্কের মানুষের দ্বারা করা সম্ভব নয়। অর্থের বিনিময়ে দেশের বিরুদ্ধে এমন মিথ্যাচার করা ব্যক্তি মানসিক ভারসাম্যহীন বৈ কিছুই নয়। এসব গুজবকারীদের বয়কট করাও সময়ের দাবি বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

     এই ধরনের আরও খবর

ফেসবুক

পুরাতন খবর খুঁজুন

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১