Jagroto Bangladesh

সারা বাংলাদেশের সব খবর

ঢাবির সহকারী প্রক্টর “ভিসি ও প্রক্টরকে স্যার বলে সম্বোধন না করায় ছাত্রকে হয়রানি”

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন সহকারী প্রক্টর কথোপকথনের সময় ভাইস চ্যান্সেলর ও প্রক্টরকে “স্যার” বলে উল্লেখ না করায় একজন ছাত্রকে হয়রানি করেছেন এবং একদল ছাত্রের সাথে আক্রমনাত্মক আচরণ করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

ঘটনার পর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে একটি ভিডিও। ভিডিওতে, শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক মোহাম্মদ মাহবুবুর রহমানকে উত্তপ্তভাবে কথা বলতে এবং শিক্ষার্থীদের দিকে আঙুল তুলতে দেখা যায়।

আরমানুল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র নয় বলে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের আরমানুল হক নামে এক ছাত্রকেও তল্লাশি চালায় বলে অভিযোগ রয়েছে।

অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে গিয়েছিলেন ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী হাসনাত আবদুল্লাহকে, যিনি সরকারি চাকরিতে অব্যবস্থাপনা বন্ধের দাবিতে মঙ্গলবার থেকে অনশন পালন করছেন।

কথোপকথনের সময় হাসনাত বলেন, “ভিসি ও প্রক্টর” এসে তার সব দাবি পূরণের আশ্বাস দিলে তিনি তার অনশন ভাঙবেন।

শিক্ষার্থীরা যেভাবে ভিসি ও প্রক্টরকে সম্বোধন করেছে তাতে ক্ষুব্ধ হয়ে সহকারী প্রক্টর শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে চিৎকার শুরু করে বলেন, সহ্যের একটা সীমা থাকে… আপনি কে? আপনার কথা মতো ভিসি আসবেন? ভিসি ও প্রক্টরকে সম্বোধন করবেন? স্যার হিসাবে।”

ডেইলি স্টারের সঙ্গে আলাপকালে আরমানুল হক বলেন, আমরা ভিসি ও প্রক্টরকে স্যার বলে সম্বোধন করিনি এবং সে কারণেই সহকারী প্রক্টর আমাদের সঙ্গে আগ্রাসী আচরণ করেছেন। একজন শিক্ষকের কাছ থেকে এমন আচরণ আমরা আশা করিনি।

যোগাযোগ করা হলে অধ্যাপক মাহবুবুর বলেন, “আমি আমার ছাত্রকে দেখতে গিয়েছিলাম এবং তাকে অনশন ভাঙার জন্য বোঝানোর চেষ্টা করেছি। কিন্তু কয়েকজন শিক্ষার্থী আমার সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেছে। আমি এর প্রতিবাদ করেছি।”

এদিকে, ঢাবি উপাচার্য প্রফেসর মোঃ আখতারুজ্জামান তাকে অফিসিয়াল সার্ভিসে অব্যবস্থাপনা অবসান এবং তার অন্যান্য দাবি পূরণের ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিলে হাসনাত তার অনশন প্রত্যাহার করেন।

শেয়ার করুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস

সর্বমোট

আক্রান্ত
২,০৩৬,৫২৭
সুস্থ
১,৯৮৫,৫৭৮
মৃত্যু
২৯,৪৩১
সূত্র: আইইডিসিআর

সর্বশেষ

আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু
স্পন্সর: একতা হোস্ট