হাইকোর্ট এলাকায় গাড়ি ভাঙচুর ঘটনায় বিএনপির আরও ৩ নেতা আটক

প্রকাশিত: ৫:৩০ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৯, ২০১৯

জাগ্রত বাংলাদেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক: জাতীয় প্রেসক্লাবে কর্মসূচি পালন করে বের হওয়ার সময় বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির প্রশিক্ষণবিষয়ক সম্পাদক এবিএম মোরারফ হোসেনসহ দলটির তিন নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে থেকে তাদের আটক করা হয়। আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করে বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান জানান, আটকের খবর শুনেছি। তবে এখনও বিস্তারিত কিছু জানি না। আমরা খোঁজ নিয়ে জানার চেষ্টা করছি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, জাতীয় প্রেসক্লাবে আলোচনা সভা অনুষ্ঠানে এসেছিলেন বিএনপির প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক এ বিএম মোশাররফ হোসেন, অ্যাডভোকেট আলম এবং অ্যাডভোকেট তৌহিদ। অনুষ্ঠান শেষ করে তারা প্রেসক্লাব থেকে বের হতে গেলে ওই সময় পুলিশ তাদের আটক করে।

এদিকে বিএনপির এ তিন নেতাকে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করে শাহবাগ থানার ওসি আবুল হাসান জানান, মঙ্গলবার (২৬ নভেম্বর) দুপুরে রাজধানীর হাইকোর্ট এলাকায় গাড়ি ভাঙচুর ও পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় তাদেরকে আটক করা হয়েছে। আজই তাদের আদালতে পাঠানো হবে।

কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দলের নেতাকর্মীরা গত মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্টের সামনে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে। একপর্যায়ে পুলিশের সঙ্গে তাদের ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে। বেশ কয়েকটি গাড়িও ভাঙচুর করা হয়।

ওই ঘটনায় সরকারি কাজে বাধা দেয়া, অগ্নিসংযোগ ও গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ এনে শাহবাগ থানায় মামলা করে পুলিশ। এ মামলায় বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ ৫০০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

ওই মামলা দায়ের হওয়ার পর বুধবার ভোর রাতে গ্রেফতার হন মুক্তিযোদ্ধা দলের কেন্দ্রীয় সভাপতি ইশতিয়াক আজিজ উলফাত।

এরপর বৃহস্পতিবার দুপুর পৌনে ১২টার দিকে রাজধানীর নয়াপল্টন থেকে আটক হন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবদলের অফিস স্টাফ মঞ্জু ও কৃষক দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের স্টাফ ফারুক। ওই দিন সকালে সুপ্রিম কোর্টের মাজার গেট থেকে বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব খায়রুল কবির খোকনকে আটক করে পুলিশ। পরে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদকেও আটক করা হয়। আটকের কয়েক ঘণ্টা পরই অবশ্য হাফিজ উদ্দিন আহমেদসহ তিনজনের জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন আদালত।

এছাড়া বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ চার নেতা ৮ সপ্তাহের আগাম জামিন পেয়েছেন।