লঞ্চের কেবিনে কিশোরীর সর্বস্ব কেড়ে নিল প্রেমিক

প্রকাশিত: 10:48 AM, January 24, 2020

জাগ্রত বাংলাদেশ

 সালাউদ্দিন (৩০) নামে কথিত এক প্রেমিককে গ্রেপ্তার করেছে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ। অভিযোগ রয়েছে, বেড়াতে নেয়ার কথা বলে লঞ্চের কেবিনে প্রেমিকাকে (১৭) একাধিকবার নির্যাতন করেছে ওই প্রেমিক।

গ্রেপ্তার সালাউদ্দিনকে গত বুধবার আদালতে প্রেরণ করে পুলিশ। এর আগে মঙ্গলবার দিবাগত রাতে ভুক্তভোগী ওই কিশোরী বাদী হয়ে ফতুল্লা মডেল থানায় একটি মামলা করেন। পরে রাতেই পুলিশ অভিযুক্ত সালাউদ্দিনকে আটক করে।

সালাউদ্দিন চাঁদপুর পৌরসভার উত্তর জিটি রোডের সিদ্দিক আলীর ছেলে। সে ফতুল্লার আমতলা প্রেম রোড এলাকার বাবুল মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থেকে ফতুল্লায় ঝুটের ব্যবসা করতো বলে জানা গেছে।

ভুক্তভোগী কিশোরী জানান, তিনি ফতুল্লার এনায়েতনগর এলাকার একটি হোসিয়ারীতে কাজ করতো। সেখানে সালাউদ্দিনের সাথে তার পরিচয় হয়। এরপর বিগত ৩ বছর ধরে প্রেম চলে তার সাথে। এরই মধ্যে বিয়ের কথাও হয় প্রেমিকের সাথে তার।

তিনি আরও জানায়, গত ১১ জানুয়ারি সকালে ফতুল্লার পঞ্চবটি বাসস্ট্যান্ডে তাকে তার প্রেমিক আসতে বলে। এরপর সেখান থেকে কৌশলে তাকে অপহরণ করে ঢাকার সদরঘাট এলাকায় নিয়ে যায়। কিশোরী লঞ্চে উঠতে গড়িমসি করে।

প্রেমিক আশ্বাস দেয় গ্রামের বাড়িতে নিয়ে গিয়ে তাকে বিয়ে করবে। এরপর চাঁদপুরগামী একটি লঞ্চের কেবিনে নিয়ে তার সর্বস্ব কেড়ে নেয়। পরবর্তীতে চাঁদপুর থেকে ফিরে আসার পথেও সালাউদ্দিন তার উপর পুনরায় হামলে পড়েন। বিকেলে তাকে সাইনবোর্ড এলাকায় রেখে সালাউদ্দিন তার বাসায় চলে যায়। ঘটনার পর একাধিকবার সালাউদ্দিনকে ফোন করা হলেও সে তার মোবাইল ফোন রিসিভ করেনি।

এ ব্যাপারে ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো.আসলাম হোসেন জানান, নির্যাতিত কিশোরী মঙ্গলবার রাতে একটি লিখিত অভিযোগ দিলে অভিযুক্তকে রাতেই প্রথমে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে অভিযুক্ত সালাউদ্দিন কিশোরীকে নির্যাতনের কথা স্বীকার করে। তার বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন আইনে মামলা নিয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে।